Tuesday, 9 May 2017

রবীন্দ্রনাথের বিজ্ঞান ভাবনা

























1 comment:

  1. বস্তুর অবস্থান ভালো করে মাপতে গেলে তার ভরবেগ সম্পর্কে জানা মুশকিল হয়ে যায়; আবার ভরবেগ ভালো করে জানলে তার অবস্থান সম্পর্কে ধারনাটা খুব ঘোলাটে হয়ে যায়। এটাই হলো হাইজেনবার্গের অনিশ্চয়তা সূত্র।
    আইনস্টাইন বললেন, আচ্ছা, না হয় মেনেই নেওয়া গেলো কোনো একটা মুহূর্তে বস্তুর অবস্থান এবং ভরবেগের নিঁখুত পরিমাপ করা সম্ভব নয়। তা থেকে কি বলার কারন আছে যে তাহলে যে কোনো মুহূর্তে তার সুনির্দিষ্ট অবস্থান ও গতিবেগের অস্তিত্বই নেই ?
    নীলস বোরের নেতৃত্বে অনেক বিজ্ঞানী বললেন: আমরা যখন মাপতে পারছি না কোনোমতেই, তা হলে জিনিসটা আছে বলা উচিৎ নয়। এই বিজ্ঞানীরা অনেকই বোরের গবেষনা প্রতিষ্ঠান - কোপেনহেগেন-এ কাজ করতেন। তাই এই ব্যাখ্যাটাকে বলা হয়ে থাকে 'কোপেনহেগেনীয় ব্যাখ্যা'।
    এ ব্যাখ্যায় সন্তুষ্ট হননি আইনস্টাইন। ১৯৩০ সাল নাগাদ রবীন্দ্রনাথের সাথে তার দেখা হয়। তখন তিনি বলেছিলেন: "ধরুন একদিন যদি কোনো মানুষ আর অবশিষ্ট না থাকে, তাহলে কি অ্যাপোলোর মূর্তি আর সুন্দর থাকবে না?" রবীন্দ্রনাথ তার উত্তরে বলেছিলেন, "না।"
    নতুন কোয়ান্টাম তত্ত্বের দর্শন মেনে নিতে রবীন্দ্রনাথের অসুবিধা হয় নি।

    Courtesy: Albert Einstein (Selection from and on Einstein)

    ReplyDelete